জুলে, আবার, জুলে লাদাখ – একাদশ পর্ব

[পর্ব ১], [পর্ব ২] ,[পর্ব ৩], [পর্ব ৪], [পর্ব ৫], [পর্ব ৬], [পর্ব ৭],  [পর্ব ৮], [পর্ব ৯]এবং [পর্ব ১০] -এর পরে …

৮ই জুন ২০১৫ – দশম দিন

ঠিক ছিল, একই রাস্তা দিয়ে যখন ফেরা হবে, আর কোথাও থামাথামি নেই, যতক্ষণ না গায়ে ব্যথা হচ্ছে, ততক্ষণ আমরা চলব, সম্ভব হলে আজকের মধ্যেই সোনমার্গ বা শ্রীনগর পৌঁছে যাব। কিন্তু আপাতত সুমিতের বাইকের শক-অ্যাবজর্ভার – যাকে চলতি ভাষায় “শকার” বলা হয় (ভাবো – দুটোর মানে পুরোপুরি উলটো, শকার আর শক-অ্যাবজর্ভার) ফিট না করিয়ে বেরনোর কোনও উপায় নেই। তাই ঠিক হল আজ আমরা যাবো কারগিল পর্যন্ত। পরের দিনগুলোয় যত বেশি সম্ভব টানব।

দোকানপাট খোলে সাড়ে নটা নাগাদ। সেই মত ধীরেসুস্থে ব্রেকফাস্ট সেরে গেস্ট হাউসে চেক আউট করে নটার সময়ে স্টার্ট করলাম। অসংখ্য স্মৃতি পেছনে ফেলে আমরা লে থেকে বেরোবার পথ ধরলাম। পেট্রল পাম্প থেকে একটু এগিয়ে এয়ারপোর্ট রোডের দিকে একটা মোড় থেকে একটু বাঁদিকে ডাইভার্সন নিয়ে মেকানিক শপ। সুমিত তো আগের দিনই শকার কিনে রেখেছিল, আমি একটা ইঞ্জিন অয়েল কিনে নিলাম। আমাদের তিনজনকার বাইকেরই অল্পবিস্তর চেক আপ হল, ব্রেক টাইট, চেন টাইট, ইঞ্জিন অয়েল ঢালা।

সব সেরে সাড়ে এগারোটা নাগাদ ফাইনাল স্টার্ট করা হল। মন খুবই খারাপ, মানালি রুট হল না। গুরদীপেরও মন খারাপ। সবাই মিলে বললাম, আবার হবে। আবার আসব। এবার মানালি দিয়ে এসে সো-কার, সোমোরিরি দেখে মানালি দিয়েই ফিরে যাবো।

লে ছেড়ে বেরিয়ে নিমুর দিকে একটু এগোতেই আকাশ আবার কালো হয়ে এল, সঙ্গে বৃষ্টি। আবার গাড়ি থামিয়ে রেনকোট পরতে হল।

নিমু পৌঁছবার আগেই অবশ্য বৃষ্টি থেমে গেল। এখানে মেঘ প্রায় মাথার কাছাকাছি উচ্চতায় থাকে বলে তাদের তাড়াতাড়ি পেরিয়ে যাওয়া যায়। নিমু যখন ঢুকলাম, তখন সামনে নীল আকাশ। রানওয়ের মত মসৃণ রাস্তা। উড়িয়ে দিলাম গাড়ি – ওড়াতে গিয়ে দেখতে পেলাম, পাহাড়ী রাস্তায় গাড়িতে স্পিড তোলা অত সহজ নয়, স্পেশালি যখন পেছনে লাগেজ বাঁধা থাকে। সেন্ট্রিপিটাল ফোর্স কাজ করে বাঁকের সময়ে, ফলে ব্রেক মারতে গেলেও ডানদিকে টার্ন নেবার সময়ে বাইকের পেছনদিকে একটা বাঁদিকে হেলে যাবার টেনডেন্সি চলে আসে।

যাই হোক, ক্রমশ পেরিয়ে গেলাম লামায়ুরু, আলচি, ফোটুলা – মাঝে একটা কী যেন নাম গ্রামের, সেখানে বসে খানিক ম্যাগি আর চা খেলাম। মাথার ওপরে নীল আকাশে সাদা মেঘেরা ভাসছে।

এর পর ফোটুলাও পেরিয়ে গেলাম। খানিক এগিয়ে একটা বাঁকের মুখে আবার খানিক বসে বিশ্রাম নিলাম – সামনেই মুলবেক, সেটা পেরোলেই তো কারগিল। সামনে পাহাড়ে একপাল ভেড়া চরছে নিশ্চিন্তে।

ফিরতে সত্যিই ইচ্ছে করছে না।

এর পরে মুলবেক পেরোলাম, সামনে দশ কিলোমিটার মত খারাপ রাস্তা, ধীরে ধীরে যাচ্ছি, তখন সূর্য অস্ত যাচ্ছে। আকাশের দিকে তাকিয়ে দেখি, সুন্দর একটা রামধনু উঠেছে। … ক্যামেরা তখন ব্যাগবন্দী, ব্যাগ আটকানো বাইকের পেছনে, বের করা সম্ভব ছিল না – তাই রামধনু দেখতে দেখতে এগোলাম। সন্ধ্যের ঠিক মুখে কারগিল পৌঁছনো গেল। এবারে অন্য একটা হোটেলে।

খুব সুন্দর হোটেলের ভিউটা, একদম পার্কিং-এর সামনের ঘরটা পেলাম, ফলে আমাদের বাইক থেকে আর লাগেজ খুলতে হল না। জাস্ট ঘরে ঢুকলাম, খেয়ে দেয়ে ঘুমিয়ে পড়লাম। ও হ্যাঁ, দিনের আলো নেভার আগে পার্কিং-এর পেছনে নেচে নেচে বয়ে চলা সুরু নদীর ভিডিও নিতে ভুলি নি।

সুরু নদীর ধারের হোটেলে যখন আরাম করছি, হঠাৎ আসাদজীর ফোন – সেই আসাদজী, যাঁর সঙ্গে আলাপ হয়েছিল খারদুং গ্রামে। ভায়রাভাই আর তিনি পালা করে ননস্টপ গাড়ি চালিয়েছেন গতকাল থেকে – একটু আগে দিল্লি পৌঁছেছেন – দু দিনে। আমরা কেমন আছি, কতদূর পৌঁছলাম, সেসব খোঁজ নেবার জন্য ফোন করেছিলেন। ভালো লাগল, কত অল্প আলাপে মানুষ আপন হয়ে যায়।

কারগিলে কেন জার্নি শেষ করলাম? … কারণ, কারগিলের পরে দ্রাস, ষাট কিলোমিটার আগে। দ্রাসে কোনও থাকার জন্য হোটেল নেই। একটা না দুটো গেস্ট হাউস – খালি না থাকার চান্সই বেশি। আর দ্রাসের পরেই সাঙ্ঘাতিক খারাপ রাস্তা শুরু হবে – জোজিলা পাস হয়ে সোনমার্গ। দ্রাসে পৌঁছতেই আমাদের অন্ধকার হয়ে যেত, আর অন্ধকারে জোজিলা পাস ক্রস করার মত বোকামো একেবারে করা উচিত নয় – তাই কারগিল।

কাল ভোর পাঁচটায় ওঠা, আর ছটার মধ্যে বেরনো। সাড়ে সাতটার মধ্যে যাতে দ্রাস পৌঁছতে পারি, আর জোজিলা পাস পেরিয়ে বারোটার মধ্যে শ্রীনগর পেরোতে পারি।

=================================================================================

৯ই জুন ২০১৫ – একাদশ দিন

স্বর্গ থেকে ক্রমশই দূরে সরে আসছি। কারগিলে মনোরম ঠাণ্ডা ছিল – রাতে একটা কম্বল চাপা দিয়ে তোফা ঘুম হল, অবশ্য তার আগে টিভি চালিয়ে নব্বইয়ের দশকের একটা ঝুল সিনেমা দেখে উপভোগ করতে ছাড়ি নি আমরা। সকাল সাড়ে পাঁচটায় উঠে পড়লাম সক্কলে। কাল রাতেই হোটেলের বিল মেটানো হয়ে গেছে, জাস্ট ওঠা, মুখ ধুয়ে জামাকাপড় পরা, আর বেরিয়ে পড়া। লাগেজ তো বাইকেই বাঁধা আছে।

স্টার্ট করতে করতে সাড়ে ছটা বেজেই গেল, দেরি না করে এগিয়ে গেলাম। আর কোথাও থামাথামি নেই। কারগিল শহর পেরোতেই চারিদিক নির্জন, কেবল পাহাড়, ভোরবেলার রোদের মিষ্টি আলোছায়ার খেলা, আর পাশ দিয়ে নাচের ছন্দে বয়ে চলা সুরু নদী। কারগিল থেকে দ্রাসের রাস্তা যে এত সুন্দর, আগে কেন খেয়াল করি নি? … মনে পড়ল, এই রাস্তায় আমি এসেছি এর আগে দুবার। এক ২০১২ সালে, আর দুই, কদিন আগেই। প্রথমবারে গাড়িতে বসে ছিলাম, কোনওভাবে মিস করে গেছি। আর দ্বিতীয়বারে তো অন্ধকারে পেরিয়েছি। আজ প্রকৃতির রূপ দেখে মোহিত হয়ে গেলাম – কেবলই মনে হচ্ছিল, গাড়ি থামিয়ে খানিক ছবি নিই, ভিডিও তুলি। কিন্তু পরক্ষণেই মনে হচ্ছে – না, আর কোথাও থামাথামি নয়, সম্ভব হলে আজ রাতের মধ্যে জম্মু, না পারলে উধমপুর পর্যন্ত তো পৌঁছতেই হবে, যাতে তিনদিনে দিল্লি ফেরা যায়।

লে থেকে তিনদিনে দিল্লি ফেরার ব্যাপারটা প্রায় অসম্ভবই বলা যায়, অত্যন্ত স্ট্যামিনা না থাকলে সাড়ে তেরোশো কিলোমিটার তিনদিনে কভার করা বেশ চাপের ব্যাপার, আর আমরা তো তিনদিনও নয়, আড়াইদিন হাতে নিয়ে নেমেছি। বিবেক-প্রিয়াঙ্কা কাল ভোরে বেরিয়ে পড়েছিল, আমরা বেরিয়েছি দুপুর পার করে। অর্ধেক দিন কাল লে-তেই নষ্ট হয়েছে, দেখা যাক, কতদূর পৌঁছনো যায় আজ।

দ্রাস যত কাছে এগিয়ে আসছে, আমরা নিচের দিকে নামছি, কিন্তু ঠাণ্ডা যেন বেড়ে যাচ্ছে ক্রমশ। একটু পরেই দেখলাম অলমোস্ট আমাদের লেভেলে সামনের পাহাড়ে একটা ঝর্ণা ওপর থেকে নিচ পর্যন্ত জমে আছে। আশেপাশে পাহাড়ের গায়ে বরফের ছোপ। শীতের প্রকোপ চার লেয়ার পেরিয়ে গায়ের চামড়ায় মালুম দিচ্ছে। সত্যিই অদ্ভূত অবস্থান এই দ্রাসের, লে থেকে এতটা নিচে হয়েও দ্রাস হল পৃথিবীর সেকেন্ড কোল্ডেস্ট ইনহ্যাবিটেটেড প্লেস। শীতকালে এখানে মাইনাস ষাট ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত টেম্পারেচার নেমে যায়।

সাতটা কুড়িতে আমরা দ্রাস পৌঁছে গেলাম। হাল্কা বিরতি, চা বিস্কুট আর পকোড়া দিয়ে জলখাবার সারা হল। তারপর আবার এগনো।

দ্রাসের সাইনবোর্ডটা পেরোতে যতটুকু সময়, তার পরেই ভাঙাচোরা রাস্তা শুরু। খানিক এগোতেই গাড়ির লম্বা লাইন, ছোট্ট একটা নদীর ওপর সরু ব্রিজ, আর সেই ব্রিজ পেরোচ্ছে উল্টোদিক থেকে আসা মিলিটারি ট্রাকের দল। একটার পর একটা, একটার পর একটা, একটার পর একটা … যতদূর চোখ যায়, ওই ওখানে একটা বাঁক আছে রাস্তায়, কেবলই দেখছি একটা করে ট্রাক বেরিয়ে আসছে সেই বাঁক থেকে। বেশ খানিকক্ষণ বাদে একটা ট্রাকের দয়া হল, সে ব্রিজের আগে সাইড করে দাঁড়িয়ে আমাদের ইশারা করল পার হয়ে আসতে।

এর পর রাস্তার অবস্থা আরও ভয়ঙ্কর হয়ে উঠল, চালচামড়া ওঠা, পাথরভরা রাস্তা। এতটা কি খারাপ ছিল আসার দিন? কে জানে, মনে পড়ল না।

প্রায় তিরিশ কিলোমিটার এইভাবে চলার পরে আচমকা রাস্তা ভালো হয়ে গেল, আবার স্পিড বাড়িয়ে দিলাম। খানিক বাদেই গুমরি পৌঁছে গেলাম। গুমরি চেকপোস্টে ট্রাফিক আটকে রাখা ছিল, কারণ সোনমার্গের দিক থেকে ট্রাফিক আসছিল। আমরা যাওয়ামাত্র দ্রাসের দিকের ট্র্যাফিক ছেড়ে দেওয়া হল। আমরা উঠতে শুরু করলাম জোজিলার দিকে।

এই নিয়ে তিনবার জোজিলায় পা পড়ল। সেই দু হাজার বারোতে একবার, আর কপালের ফেরে এইবারে দু বার। খানিক এগোতে আবার রাস্তা খারাপ, তারপরে রাস্তার দুপাশে অল্পবিস্তর বরফের স্তুপ, আর তার পরে দূর থেকে দেখা গেল জোজিলা পাস।

পাঁচ মিনিটের বিরতি দিলাম জোজিলায়, ততক্ষণেই ছেঁকে ধরেছিল চা-কফি-ম্যাগি-স্লেজওলাদের দল। কোনওরকমে ওদের পাশ কাটিয়ে আবার চলা শুরু, কিন্তু আবার খানিক দূর যেতে না যেতেই – জ্যাম। সারি সারি ট্রাক, ট্যুরিস্টবোঝাই গাড়ি, প্রাইভেট গাড়ি, স-ব দাঁড়িয়ে। কী ব্যাপার? না আগে রাস্তা বন্ধ। কেন? ট্রাক ফেঁসে গেছে। সকাল থেকেই সব্বাই দাঁড়িয়ে, যতক্ষণ না ব্রো এসে সেই ট্রাক সরাতে পারবে, ততক্ষণের জন্য রাস্তা বন্ধ।

তখন সকাল দশটা বাজে। একটা একটা করে গাড়ি কাটিয়ে এগোতে শুরু করলাম আমি আর গুরদীপ। সুমিত আগে বেরিয়ে গেছে, ওকে দেখা যাচ্ছে না – নিশ্চয়ই আগে কোথাও ওয়েট করবে আমাদের জন্য।

একটা … দুটো … দশটা … পনেরোটা … কুড়িটা … চল্লিশটা … কত যে গাড়ির পাশ দিয়ে এগোলাম, আর খেয়াল নেই, অনন্ত জ্যাম, কিলোমিটারের পর কিলোমিটার। সবাই ধৈর্যভরে অপেক্ষা করছে।

শেষমেশ আটকে গেলাম একটা ট্রাকের পেছনে এসে। রাস্তাটা সরু, এদিকে পাহাড়ের দেওয়াল, ওদিকে খাদ, ট্রাকটা এমনভাবে দাঁড়িয়ে আছে, কোনওদিক দিয়েই সেভাবে বেরোবার উপায় নেই।

ভালোভাবে অ্যানালাইজ করে যা বুঝলাম, খাদের সাইডে যেটুকু জায়গা আছে, সেখান দিয়ে আমার বাইক বেরিয়ে যাবে। খুব সাবধানে বের করতে হবে অবশ্য, একটু এদিক ওদিক হলেই খাদের নিচে … হাল্কা হাল্কা করে ক্লাচ ছেড়ে, হ্যান্ডেল সোজা রেখে দিব্যি আরামসে পেরিয়ে এলাম, সামনে পরের ট্রাকটার আগে একটু ফাঁকা জায়গা, সেখানে বাইক দাঁড় করিয়ে পেছন ফিরে তাকালাম।

গুরদীপ আটকে পড়েছে। পালসার যত সহজে বেরিয়েছে, দুদিকে লাদাখ ক্যারিয়ার আটকানো বুলেট তো অত সহজে বেরোতে পারবে না, তার জন্য বেশি স্পেস চাই। ফিরে এলাম আবার জায়গাটা দেখবার জন্য, এইবার উল্টোদিক থেকে ওই খাদের ধারের স্পেসটা দেখে আমার বুক কেঁপে গেল, আমি এইখান দিয়ে পেরিয়ে এসেছি? আক্ষরিক অর্থে লাইফ রিস্ক করে পেরিয়েছি, বুঝতেই পারি নি কী ডেঞ্জারাস রকমের সরু স্পেস! অজান্তেই একবার ঢোঁক গিললাম।

সামনে আবার বাইক এগিয়ে যাবার জন্য জায়গা আছে, কিন্তু গুরদীপকে ছেড়ে এগনো সম্ভব নয়। ট্রাকওলাকে বললাম একটু আগিয়ে পিছিয়ে ট্রাকটাকে আরেকটু সাইড করে রাখতে, ড্রাইভার জাস্ট পাত্তাই দিল না। শেষমেশ পাহাড়ের সাইডেই যেটুকু স্পেস ছিল, গুরদীপ বলল, ওখান দিয়ে বেরিয়ে যাওয়া সম্ভব, যদি কয়েকটা পাথর সরিয়ে দেওয়া যায়। … তাই হল। দুজনে মিলে সামনে পড়ে থাকা কয়েকটা পাথর হাত লাগিয়ে সরিয়ে ফেললাম, গুরদীপের বাইক তাদের পাশ কাটিয়ে টুক করে ট্রাকের সামনে চলে এল।

এর পরে জ্যাম খুব অল্পই অবশিষ্ট ছিল, জ্যামের একেবারে সামনে এসে দেখলাম দুই বরফের দেওয়ালের মাঝে পাথরের খাঁজে ইন্ডিয়ান অয়েলের একটা ট্যাঙ্কারের চাকা বসে গেছে। এমনভাবে বসেছে, এগোতে বা পিছোতে গেলেই ট্যাঙ্কার কাত হয়ে খাদে পড়ে যাবে। সোনমার্গের দিক থেকে ক্রেন এসেছে – চেষ্টা চলছে ট্যাঙ্কারটাকে উদ্ধার করার। দুদিকেই তুমুল জ্যাম।

তবে বেশিক্ষণ ওয়েট করতে হল না, খানিক বাদেই ট্যাঙ্কার উদ্ধার হল, ব্রো এবং আর্মির জওয়ানেরা মিলে উল্টোদিকের ট্রাফিক সব সাইড করে দিল, আমরা বেরোবার রাস্তা পেয়ে গেলাম। কিছু পাথর, কিছু জল, কিছু মাটি – এইসবের ওপর দিয়ে আরও প্রায় পঁচিশ কিলোমিটার চলার পরে আবার সামনে কাশ্মীর ভ্যালি দেখতে পেলাম।

সোনমার্গের সেই রেস্টুরেন্ট – যেখানে গুরদীপ আর সুমিতের সাথে আমার প্রথম দেখা হয়েছিল, সেইখানে যখন পৌঁছলাম, তখন বাজে সাড়ে বারোটা। ঝটপট কিছু খাবারের অর্ডার দিলাম, বাড়িতে ফোন করলাম। এইবারে ননস্টপ, অন্তত শ্রীনগরে থামার কোনও সীন নেই।

সোয়া একটাতে আবার শুরু হল পথ চলা। মন্দাকিনী নদীর পাশ দিয়ে সুন্দর রাস্তা, তারপরে আবার খানিক ভাঙাচোরা রাস্তা পেরিয়ে শ্রীনগরে যখন পৌঁছলাম, তখন পিঠ তেতেপুড়ে একসা – এত গরম। একটা কোথাও থামা দরকার, এই জ্যাকেট সোয়েটার খুলে হাল্কা হতে হবে। কিন্তু শ্রীনগরের মধ্যে হাইওয়ে এত চওড়া যে ধারেকাছে কোথাও ছায়া নেই থামবার জন্য। ওইভাবেই এগোতে থাকলাম, চলতে চলতে এক সময়ে আমরা শ্রীনগর পারও হয়ে গেলাম। শ্রীনগরের বাইরে পামপোর বলে একটা জায়গা আছে, সেইখানে একটা জলখাবারের দোকানের সামনে থামলাম। গা থেকে ধরাচূড়ো খুলে কোল্ড ড্রিঙ্কস অর্ডার দিলাম, তেষ্টা পেয়েছে বেজায়। এই সেই জায়গা, যেখানে আসার দিন বৃষ্টির জন্য দাঁড়িয়েছিলাম, আর লোকাল কাশ্মীরিরা আমাকে প্রায় ঘিরে ধরেছিল। সেদিন বৃষ্টিতে শীতে কাঁপছিলাম, আজ রোদে তেতেপুড়ে যাচ্ছি।

জ্যাকেট, পুলোভার খুলে ফেললাম, অল্প কষ্ট হলেও জামার নিচে থার্মাল ইনারটা খুললাম না, কারণ এই কাশ্মীর ভ্যালি শেষ হলেই আবার পাহাড় শুরু হবে, গরম কমে যাবে।

দেখতে দেখতে পামপোর পেরোলাম, তাওপরে লেথিপোরা, অবন্তীপোরা, কাজিগুন্দ – এইখানেই সেই সারি সারি ক্রিকেট ব্যাটের দোকান, এখন আর আলাদা করে কিছু মনে হচ্ছে না, জাস্ট ঐ, সান্দা যেমন বলল, ক্রুজ কন্ট্রোল, আমি যেটাকে বলছিলাম অটো মোড, ওই অটো-মোডে চলেছি তো চলেছি। সকাল থেকে প্রায় আড়াইশ কিলোমিটার পেরিয়ে এসেছি, বিকেল সাড়ে চারটে মত বাজে, এখন জম্মু আরও আড়াইশো কিলোমিটার। জম্মুর হাইওয়ে ধরে নিয়েছি, মোটামুটি চলনসই রাস্তা, যদিও সরু, কিন্তু নির্জন, সোজা রাস্তা, মাঝেমধ্যে দু একটা ছোট ছোট জনবসতি পড়ছে, সেইখানে একটু ট্রাফিক, তা ছাড়া শুধু চরৈবেতি, চরৈবেতি, আর কিছু দেখার নেই, কোথাও দাঁড়াবার নেই।

সোয়া পাঁচটায় জওহর টানেল পার হলাম। টানেলের ভেতরে আরেকটু হলেই সুমিত বাইক স্কিড করে পড়ে যাচ্ছিল, মাঝে কাদা জমে ছিল, যাই হোক, সামলে নিয়ে টানেল থেকে বেরিয়ে আবার একটু দাঁড়ালাম। বনিহাল। এবারে আবার পেটে কিছু না দিলে নয়। গুরদীপ সুমিতের স্টেপল ফুড আলু পরোটা, আমার হল ব্রেড অমলেট। মজার ব্যাপার, টানেলের এপারে ওপারে ওয়েদার অদ্ভুত রকমের আলাদা, টেম্পারেচারও আলাদা হয়, এদিকে জম্মু ভ্যালি, ওদিকে কাশ্মীর ভ্যালি। কাশ্মীর থেকে ঢুকলাম যখন সব শুকনো, টানেলের ভেতর দিয়ে যখন বনিহালে ঢুকলাম – জম্মুর দিকে, টিপটিপ বৃষ্টি হচ্ছে, রাস্তা ভিজে। স্নো-পিকের আর কোনও দেখা নেই।

খেতে খেতে আলোচনা হল, আজ সম্ভবত জম্মু পৌঁছনো সম্ভব নয়। এখনও জম্মু প্রায় দুশো কিলোমিটার, বাজে প্রায় সোয়া ছটা। পাহাড়ি রাস্তায় অ্যাভারেজ তিরিশ-চল্লিশের বেশি স্পিড ওঠানো যাবে না – সেক্ষেত্রে দুশো কিলোমিটার পার করতে পাঁচ থেকে ছ ঘন্টা লাগবে, ননস্টপ চললেও। উধমপুর জম্মু থেকে সত্তর কিলোমিটার আগে, টার্গেট উধমপুরই রাখা হোক। সুমিত বলল, অত টার্গেট রাখার কিছু নেই, চলতে থাকি, রাত নটা সাড়ে নটার সময়ে যেখানে পৌঁছব, সেখানেই স্টে করব।

ধীরে ধীরে অন্ধকার নামল। আসার দিন একা এসেছিলাম, প্রথমবারের জন্য নতুন রাস্তা, চলার আনন্দ বেশি ছিল, রাস্তার অবস্থার দিকে বিশেষ খেয়াল রাখি নি, আর সকাল সকাল জম্মু থেকে বেরিয়েছিলাম, সারা রাস্তায় খুব বেশি ট্র্যাফিকও পাই নি – সেদিন ছিল রবিবার। আর আজ? একে তো অন্ধকার, তার ওপর মাঝেমধ্যে টিপিটিপি বৃষ্টি, আর উল্টোদিক থেকে – মানে জম্মুর দিক থেকে, আসতে থাকা কাউন্টলেস ট্রাক, ট্যাক্সি। হেডলাইটে কখনও চোখ ধাঁধিয়ে যায়, পরক্ষণেই রাস্তার গর্তে পড়ে বাইক লাফিয়ে ওঠে, সাথে সাথে ব্রেক মেরে বাইক স্লো করতে হয়, সেই ট্রাকের ক্যারাভান পেরিয়ে যাবার পর দেখা যায় সামনে জম্মুর দিকে চলেছে আরও দশটা ট্রাকের ক্যারাভান, তাদের একটা একটা করে ওভারটেক করা – এ যে কী অপরিসীম নার্ভের ওপর জোর লাগে, সেদিনের সন্ধ্যেটা আমি ভুলব না। যত রকমের অবস্ট্যাকল হওয়া সম্ভব অন্ধকার পাহাড়ী রাস্তায়, সমস্ত এক্সপিরিয়েন্স হয়ে গেছিল ওই এক সন্ধ্যেয়। রাস্তা একনাগাড়ে খারাপও নয়, একনাগাড়ে ভালোও নয়, কখন যে খারাপ রাস্তা আসে, কখন যে ভালো রাস্তা আসে, – মানে, জম্মু শ্রীনগর রুটটা এই রকম, প্রথমদিকে মনে হবে, বাঃ, দারুণ রাস্তা তো, খানিক বাদে মনে হবে, বেশির ভাগটাই ভালো, মাঝেমধ্যে দু একটা খারাপ প্যাচ। ঘন্টাদেড়েকের মধ্যে মতটা পুরো একশো আশি ডিগ্রি ঘুরে যায় – তখন মনে হয়, আসলে বেশির ভাগ রাস্তাই খারাপ, কয়েকটা প্যাচ আসলে ভালো, তারপরে আবার মনে হয়, না না, বেশির ভাগ রাস্তাই আসলে ভালো … এই করতে করতে ডেস্টিনেশনে পৌঁছে বোঝা যায় – রাস্তাটা আসলে ভালো আর খারাপ মিশিয়ে – ফিফটি ফিফটি।

দাঁড়ালে তাও দু চারটে কথা বলার সুযোগ জোটে, একনাগাড়ে চলতে থাকলে খানিক বাদে একটা একঘেয়েমি গ্রাস করে। এই অন্ধকার, ট্রাকের সাথে নেগোশিয়েশন – মাথাটা কেমন যেন জ্যাম হয়ে যায়। নিজের মনেই একটা গান ধরলাম, তারপরে কী মনে হল, গানটা থামিয়ে মুখ দিয়ে বেরিয়ে এল একটা ছড়া – একেবারেই আনরিলেটেড, আমাদের ছোটো নদী চলে আঁকেবাঁকে, বৈশাখ মাসে তার হাঁটুজল থাকে। যতটা মনে ছিল, বিড়বিড় করে বকলাম, তার পরেই মাথায় এল জব কোই বাত বিগড় জায়ে – খানিক পরে খেয়াল করলাম আমি আবার ছড়া বলছি – আমি যখন ছোট ছিলাম, খেলতে যেতাম মেঘের দলে।

এগুলো কি পাগলামির লক্ষণ? কে জানে? লে-তে গিয়ে যেটা আর সইতে হয় নি, সেই গায়ের ব্যথা ফিরে আসছে আবার। পিঠ টনটন করছে, হাতের আঙুলে সাড় নেই, জাস্ট নিজেকে এন্টারটেইন জরার অছিলায় কখনও ছড়া কাটছি, কখনও গান গাইছি – সে-ও আর কতক্ষণ ভালো লাগে? একটা সময়ে চুপ করে গেলাম নিজে নিজেই।

রামবন পার হলাম, ঘড়িতে তখন আটটা কুড়ি। একটা চায়ের দোকান দেখে থামালাম। সুমিত প্রচণ্ড চা খায়, আমি দিনে দুবারের বেশি খাই না, আমি একটা ছোট লিমকার বোতল নিলাম। দোকানের সামনে তখন দাঁড়িয়ে ছিল একটা হাইওয়ে পুলিশ পেট্রল ভ্যান। জেঅ্যান্ডকে পুলিশের কয়েকটা কনস্টেবল আর একজন সর্দার পুলিশ অফিসার সেখানে তখন চা খাচ্ছিল। তিনখানা লাগেজবোঝাই বাইক দেখে এগিয়ে এল – লে যাচ্ছো?

আমরা বললাম, না না, লে থেকে আসছি। শুনেই সর্দারের চোখ কপালে, লে থেকে আসছো? কটার সময়ে স্টার্ট করেছিলে?

সর্দারকে আশ্বস্ত করলাম, না না, আজ সকালে আমরা কারগিল থেকে স্টার্ট করেছি। সাড়ে ছটায়। সর্দারের বিস্ময় তাও কমে না – কারগিল থেকে আসছো? উরেবাবা! এতটা নিজে নিজে চালিয়ে এসেছো? উরেবাবা! পারলে কী করে? উরেবাবা!

তা, এসেছি কম না। সাড়ে তিনশো কিলোমিটার তো হবেই কারগিল থেকে। পাহাড়ি রাস্তায় সাড়ে তিনশো কিলোমিটার খুব একটা কম দূরত্ব নয়, তার ওপর এই রকমের ট্রাফিক, আর এই রাস্তার কন্ডিশনে। সকাল বেলায় আবার জোজিলা পাসও পেরিয়েছি, ওখানে জ্যামটা না হলে হয় তো এতক্ষণে আমরা পাটনি টপ পৌঁছে যেতাম। পাটনি টপ এখান থেকে আরও পঁয়তাল্লিশ কিলোমিটার দূরে।

চা লিমকা খেয়ে সর্দারকে গুডবাই জানিয়ে আবার শুরু করলাম, হাত আর চাইছে না বাইকের হ্যান্ডেল ধরতে, অদ্ভূত শিরা টেনে টেনে ধরছে এইবারে। উধমপুরও বোধ হয় সম্ভব নয়, তা হলে পাটনি টপে?

সেই ভালো, পাটনিটপে ঠাণ্ডা থাকে, (এটা জম্মু আর শ্রীনগরের মাঝে হায়েস্ট পয়েন্ট) আরামসে রাতে ঘুমনো যাবে। … এগোলাম। নিকষ কালো অন্ধকার। য়ালো বলতে শুধু আমাদের বাইকের হেডলাইট। খানিক বাদে আবিষ্কার করলাম, আমি বিড়বিড় করছি, টুইঙ্কল টুইঙ্কল লিটল স্টার।

জোর করে চুপ করালাম নিজেকে। ক্লান্তিতে মাথা ভারী হয়ে আসছে, আর চলতে পারছি না। সামনে সুমিত, কিন্তু গুরদীপকে পেছনে দেখা যাচ্ছে না। একটু দাঁড়ালাম। খানিক পরে গুরদীপ এল, সে-ও আর টানতে পারছে না। আবার এগোলাম, আবার একটু বাদে পেছনে হারিয়ে গেল গুরদীপ। সামনে এবং পেছনে ট্রাকেদের ক্যারাভানের কোনও কমতি নেই, এই অবস্থায় মিনিটে মিনিটে ট্র্যাক রাখা সম্ভবও নয়।

অনেকটা এগিয়ে যখন পাটনিটপ আর দশ কিলোমিটার মতন বাকি, সুমিত আবার দাঁড়াল, আমিও দাঁড়ালাম। বেশ খানিকক্ষণ বাদে ধীরে ধীরে গুরদীপ এল। ওকে চাঙ্গা করলাম এই বলে, আর মাত্র দশ কিলোমিটার, আজ পাটনিটপেই থাকব। এইবারে গুরদীপকে আমাদের আগে রাখা হল, ও যতই আস্তে চলুক, আমরা ওকে ওভারটেক করব না। পেছনে ধীরে ধীরে আমি আর সুমিত চলছি।

রাত সাড়ে নটায় পাটনিটপে পৌঁছলাম। এক জায়গাতেই পর পর লাইন দিয়ে বেশ কয়েকটা হোটেল, ওর মধ্যেই একটা শস্তা দেখে হোটেলে তিন বেডের রুম নিয়ে আমরা চেক ইন করলাম। খাবারের অর্ডার করলাম। জম্মু এখনও একশো কিলোমিটার দূরে রয়ে গেল। মানে, আজকের ট্র্যাভেল, চারশো কিলোমিটার। কাল মেগা-রান। সুমিতকে কাল দিল্লি পৌঁছতেই হবে, পরশুদিন সকাল দশটায় ওর ক্লায়েন্টের সাথে মিটিং আছে।

দিল্লি এখনও সাতশো কিলোমিটার। জম্মুর পরে কী লেভেলের গরম, সে আমরা সবাই জানি। আমি জানি, আমি পারব না, বললাম, তোমরা এগিয়ে যেও, আমি যেখানে মনে হবে, পারব না – সেখানে হোটেল খুঁজে থেকে যাবো। আমার জন্য তোমরা আটকে থেকো না।

গুরদীপ বলল, সিকিস্যার, আপনি চিন্তা করবেন না। আমার বাড়ি আম্বালায়। আম্বালা, দিল্লি থেকে ঠিক দুশো কিলোমিটার আগে। কালকের টার্গেট পাঁচশো কিলোমিটার রাখুন, রাতে আমাদের গ্রামের বাড়িতে আপনি গেস্ট। রাতে আমাদের ঘরে আপনাকে আসলি পঞ্জাবী আলু-পরাঠা খাওয়াবো। সকালে চা লস্যি খেয়ে আপনি দিল্লি চলে যাবেন, আমি রোববার স্টার্ট করব।

তাই সই। খানিকক্ষণ ফর্মালিটি করে অবশেষে এই প্ল্যানই ঠিক হল। আম্বালা অ্যাট এনি কস্ট, সমস্যা হলে গুরদীপের গ্রামের বাড়িতে থেকে যাওয়া, না হলে সোজা দিল্লি।

সিকিনীকে ফোন করলাম, সিকিনী বলল, তোর বাবাকে এক্ষুনি ফোন কর, উনি খুব চিন্তা করছেন। – কেন, চিন্তা কেন?

– আজ খারদুং লা পাসে ল্যান্ডস্লাইড হয়েছে, দুজন মারা গেছেন – বাঙালি। আমাকে দু বার ফোন করেছেন তোকে না পেয়ে – আমি বলেছি যে তুই গতকালই লে থেকে বেরিয়ে এসেছিস, আজ দুপুরে তুই সোনমার্গ থেকে ফোনও করেছিস, কিন্তু তুই নিজে একবার কথা বলে নে, বুড়ো মানুষ, টেনশন করছেন।

বাবাকেও ফোন করে আশ্বস্ত করলাম।

রুমটা খুব একটা পদের না, শস্তা দেখতে গিয়ে রুমের পরিচ্ছন্নতাটা দেখা হয় নি, যাই হোক, কোনওরকমে খাওয়াদাওয়া সেরে সারা গায়ে ভোলিনি স্প্রে লাগিয়ে ঘুমিয়ে পড়লাম।

কাল কি দিল্লি হবে? পারব, পৌঁছতে?

Advertisements

4 thoughts on “জুলে, আবার, জুলে লাদাখ – একাদশ পর্ব

  1. Etodin vabtam ami ekayi bok bok kori bike chalatey chalatey. Gan gayi…chhora kati….putro der bochon gulo repeat kori nijer money. Subject ar genre eto wide thakey bolar noy. Ekhon dekhchi onekeyi same jinis korey.. 🙂

    Ekbar mobile e speech recorder ta on korey headset er microphone ta mukher kachey kono vabey atkey puro rastar audio dharabiboroni diyechhilam. Kintu hawar awaj e aar bike er jhakuni tey mic sorey giye bapar ta jomey ni.

    Liked by 1 person

  2. Siki-babu,
    Tomar thriller porchhi.
    Khub mon diye … asole date gulo important.

    Khardung la te je dujon mara giyechhilen taNder khabor pouchhe dey ekjon biker.
    Bhabchhilam tomader keu ki na?
    Onara amar onek senior ekjon colleague er stri aar chhele.

    Khub bhalo lekha hoyeche eta.

    Kausik

    PS : Tumi-i bollam. Kichhu mone koro na!

    Like

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s