মন কি বাতঃ এক দেশদ্রোহীর জবানবন্দী (বাড়তি পর্ব)

দেশ কি মারে? সন্ত্রাসের কোনও ধর্ম হয় না, দেশ হয় না। আপনি তো খবর পড়েন, খবরের চ্যানেল দ্যাখেন। জানেন তো, সন্ত্রাসবাদের শিকার ওই দেশটিও? কত শিশু কিশোর শিক্ষক সাধারণ মানুষ সেখানে নিয়মিত মারা যাচ্ছে এই সন্ত্রাসের ফলে? … পাকিস্তানের সাধারণ মানুষ কিন্তু সত্যিই ইন্ডিয়াকে অতটা ঘেন্না করে না। এই ঘেন্নাটা তৈরি করা হয় মৌলবী ধর্মগুরু এবং মিলিটারি লেভেলে। তাতে জড়ানো হয় আজমল কাসভের মত কিছু নিরক্ষর ছেলেপুলেকে। জিহাদী ট্রেনিং দিয়ে এ দেশে পাঠায় তারা। আনরেস্ট তৈরি করে। সেই আনরেস্টের বলি হয় এদেশের মানুষ, ও দেশের মানুষও। কিন্তু পাকিস্তানের আমজনতা, শিক্ষিত চাকুরিজীবি মধ্যবিতের দল, তারা ঠিক আপনার আমার মতই। আপনি ইন্ডিয়ান জানলে আপনাকে বুকে জড়িয়ে ধরবে, ঘরে দাওয়াতে ডাকবে। খাবারের দাম নিতে চাইবে না। এরাই কিন্তু পাকিস্তানে সংখ্যাগুরু। এরা ঝগড়া চায় না, চায় কালচারাল এক্সচেঞ্জ। এরা ধর্মের চোখরাঙানি চায় না, চায় মুক্ত হাওয়া।

একবার ভেবে দেখুন। … More মন কি বাতঃ এক দেশদ্রোহীর জবানবন্দী (বাড়তি পর্ব)

মন কি বাতঃ এক দেশদ্রোহীর জবানবন্দী (দ্বিতীয় পর্ব)

কিন্তু একবার “আতঙ্কবাদী” তকমা লেগে গেলে তো নিশ্চিন্ত জীবন আর কাটানো যায় না। নানা কারণে অছিলায় আর্মি অফিসার আসত, অন্যান্য মুরগিদের সাথে তাকে উত্যক্ত করার জন্য। খুশি করতে না পারলে যে আরও বড় লাঞ্ছনা থাকে, কপালে। খুশি করতে না পারার অপরাধে, চোখে চোখে রাখার সাত বছর পরেও আফজলকে নিজেদের হেফাজতে নেয় এসটিএফ। ছ মাস লেগেছিল এক লক্ষ টাকা জোগাড় করতে, আফজলের পরিবারের। মুক্তির জন্য ওই দামটাই ধার্য করেছিল ভারতের স্পেশাল টাস্ক ফোর্স। ছ মাস বাদে আফজল মুক্তি পায়। নজরদারী চলতেই থাকে তার ওপর। … More মন কি বাতঃ এক দেশদ্রোহীর জবানবন্দী (দ্বিতীয় পর্ব)

আফজল গুরু – বিচারের বাণী নিরবে নিভৃতে কাঁদে?

না, এটা আমার লেখা নয়। লোকে সাধারণত নিজের ব্লগে নিজের লেখাজোখাই রাখে, আমি সচরাচর তার ব্যতিক্রম নই, তবে এইবারের জন্য নিয়ম ওভাররাইড করে অন্যের লেখা নিজের ব্লগে রাখছি, যাতে আরও আরও বেশি লোক লেখাটা পড়তে পারে। এই বিষয়ে আমারও লেখার ইচ্ছে ছিল, ইন ফ্যাক্ট, আমি নিজে একটা লেখা লিখব আবার, এর পরে, কিন্তু ফর দ্য রেকর্ড, এই লেখাটা এখানে থাক, কারণ আফজলকে নিয়ে আমি লিখলে, তার বয়ান হুবহু এক রকমেরই হত। আমার কাজটা সহজ করে দিয়েছে রৌহিন। আমার লেখার জন্য অপেক্ষা করতে হলে অনেকটা দেরি হয়ে যেত। বিশেষত, এই মুহূর্তে, রাজনৈতিক, মিডিয়া এবং বন্ধুবান্ধবের লেভেলেও পুরো ব্যাপারটাকে সম্পূর্ণভাবে ঘেঁটে দিয়ে যেভাবে দেশপ্রেমের একটা সরল ইকোয়েশন বানাবার সক্রিয় প্রচেষ্টা করছে, তাতে অনেক বেশি বেশি করে এই ধরণের স্বর আসা উচিত বলে আমি মনে করি। এবং সেটা এক্ষুনি আসা উচিত। এখনই। … More আফজল গুরু – বিচারের বাণী নিরবে নিভৃতে কাঁদে?

ইশরাত জাহানঃ তথ্যের খোঁজে (তৃতীয় পর্ব)

মনে রাখতে হবে, পনেরোই জুন, দু হাজার চার সালে আমেদাবাদের রাস্তায় একা ইশরাত খুন হয় নি, হয়েছিল তার সাথে আরও তিনজন – জীশান, আহমেদ আর জাভেদ। তাদের জন্য এত শোরগোল ওঠে নি কারণ সন্ত্রাসবাদ বা লশকর-এ-তোইবার সাথে তাদের যোগাযোগের কথা সন্দেহাতীতভাবে না হলেও, প্রমাণিত, অন্তত এরা যে সন্ত্রাসবাদের দিকে অনেকটাই ঝুঁকে ছিল, সে ব্যাপারে তথ্যপ্রমাণ পাওয়া গেছে, কিন্তু ইশরাতের ব্যাপারে কোনও প্রমাণ আজ অবধি পাওয়া যায় নি। লশকরের দাবি ছিল ইশরাত পাকিস্তান থেকে এসেছে, এদিকে ইশরাতের মা, বোন দীর্ঘদিন ধরে মুম্বাইয়ের মুম্ব্রা এলাকার বাসিন্দা। ইশরাতও তাই। … More ইশরাত জাহানঃ তথ্যের খোঁজে (তৃতীয় পর্ব)

স্বপ্নপূরণের কাহিনি, অথবা স্বপ্ন দেখার শুরু

স্বপ্নেরা দানা বাঁধছে, তারা আস্তে আস্তে আকার পাচ্ছে। সামনে দুটো খুব বড় বড় চ্যালেঞ্জ, মাস তিনেকের ছুটির ব্যবস্থা করা, আর টাকা পয়সার জোগাড় করা। হয় তো সাত আট লাখ টাকায় হয়ে যাবে, হয় তো তার কমেই হয়ে যাবে। এবং আমি এটা জানি – আমাকে নিংড়ে ফেললেও এ টাকা বেরোবে না। আমাকে তাই সবার সাহায্যের ওপর নির্ভর করতে হবে। এই ট্রিপ, যদি বড় কোনও স্পনসর না পাই, তা হলে আমাকে ক্রাউড-ফান্ডিংএর ব্যবস্থা করতে হবে। বড় স্পনসরের চেষ্টাও করব। … More স্বপ্নপূরণের কাহিনি, অথবা স্বপ্ন দেখার শুরু

ইনটলারেন্স নিয়ে কিছু কথা

পাকিস্তানে যাবার সুপরামর্শ আপনারা আজকাল শুনছেন, আমি এই গত দেড় বছর ধরে অনেকবার পেয়ে এসেছি। ২০১৪র নির্বাচনের সময় থেকেই ভারত কেমন একটা অদ্ভূত রকমের পোলারাইজড হয়ে গেছে, যে বা যারা নরেন্দ্র মোদীর সমর্থন করবে না, তারা দেশের শত্রু, তারা দেশের বিকাশ চায় না, তাদের অবিলম্বে পাকিস্তানে পাঠিয়ে দেওয়া হোক। বিজেপি জেতার পরে উল্লসিত অনেকেই আমাকে জিজ্ঞেস করেছেন, আমি কবে পাকিস্তান যাচ্ছি। সেই প্রশ্নকারীদের মধ্যে আমার কলেজের সহপাঠী, স্কুলের সময়কার বন্ধু কিংবা পরে হওয়া অল্পপরিচিত ব্যক্তিও আছেন, এই শ্রী যতীন ধাওয়ান তাঁদের মধ্যেই একজন। … More ইনটলারেন্স নিয়ে কিছু কথা

স্মৃতির সরণী বেয়ে –

অনেকদিন বাদে বাদে কিছু চেনা-আধচেনা মুখ দেখলে চমকে যেতে হয়, এরা তো আমার থেকেও ছোট ছিল, জীবনের কী প্রচণ্ড তাপে এদের মুখচোখনাকহাত এই রকম বুড়িয়ে গেল? গাল ভাঙা, দীর্ঘসময়ের অযত্নলালিত দাড়ি, সাইকেলের হ্যান্ডেলে অলস ঝুলে থাকা সেই একই রকমের ডোরাকাটা নাইলনের ব্যাগ, তার হ্যান্ডেলদুটো বহুব্যবহারে জীর্ণ, সুতলি বেরিয়ে আসা, শরীর যেন অল্প নুয়ে পড়ছে, মুখ খুললে শোনা যায় সেই আদি ও অকৃত্রিম হুগলির ডায়ালেক্ট, উচ্চগ্রামে কথা বলার অভ্যেস – যা দূর থেকে শুনলে হঠাৎ মনে হয় ঝগড়া লেগেছে বুঝি। এদের মাঝে গিয়ে পড়লে মনে হয়, শুধু এদেরই বুঝি বয়েস বেড়েছে, আমি মানুষটা বুঝি একই রকম আছি। এই লোকগুলোকেই আমি চিনতাম, অনেকদিন আগে, তখন তারা বালক, কিশোর, সদ্যযুবক, গালে দাড়ি গজিয়েছে কি গজায় নি, আজ তারা পূর্ণবয়স্ক, হাতে বিড়ি কি সিগারেট ধরে গুরুত্বপূর্ণ ভঙ্গিতে আলোচনা করছে দুর্গাপুজোর ফান্ডিং-এর ব্যাপারে। … More স্মৃতির সরণী বেয়ে –

মহেশ শর্মা, গরুর মাংস এবং কিছু প্রলাপ

বেশ ভালো লাগছে, বক্তব্যগুলো শুনতে। কেমন মুখোশছাড়া মুখ দেখা যাচ্ছে আস্তে আস্তে। মুখগুলো আমাদের আশেপাশেই ছিল, এতদিন চিনতে পারি নি। আর এঁরা তো নেতামন্ত্রী, এঁদের চিন্তাভাবনা বিচারই আলাদা, সাধারণ লোকজন, আমার পরিচিত মহলেই আস্তে আস্তে কিছু মানুষের যে রূপ দেখছি, তাতে আচ্ছে দিন যে আর খুব বেশি দূরে নেই, বুঝতে পারছি। আন্দাজ করেছিলাম, এ রকমই হবে। মুজফফরনগর, দাদরি হয়ে পরের স্টেপ যে দিল্লিতেই পড়বে, এ বুঝতে খুব বেশি বুদ্ধির দরকার হয় না। ঘাড়ের কাছে হিন্দুত্বের গরম নিশ্বাস অনুভব করছি। … More মহেশ শর্মা, গরুর মাংস এবং কিছু প্রলাপ