গান্ধীহত্যায় অন্যতম অভিযুক্ত সাভারকর, কীভাবে নিশ্চিত মৃত্যুদণ্ডের হাত থেকে বাঁচলেন?

“মদনলাল (পাহ্‌ওয়া) এর পরেও তাঁর সহ-চক্রান্তকারীদের প্রতি বিশ্বাসভঙ্গ করেন নি। তিনি নিশ্চিত ছিলেন ওরা আবার চেষ্টা করবে। পুলিশের প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে তিনি আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন যাতে ওরা যথাসম্ভব বেশি সময় পায়, … তারপর যখন তিনি আন্দাজ করতে পারেন যে ওরা পালাবার জন্য যথেষ্ট সময় পেয়েছে, তখন তিনি পুলিশের কাছে মুখ খোলেন এবং তাঁদের কার্যকলাপের খুব সাদামাটা একটা বিবরণ দেন। এই বিবরণ দেবার সময়ই হঠাৎ করে তিনি বলে ফেলেন যে … তিনি তাঁর সঙ্গীদের সাথে সাভারকর সদনে গিয়েছিলেন, এবং সেখানে তিনি সেই বিখ্যাত রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বকে স্বচক্ষে দর্শন করে এসেছেন। … More গান্ধীহত্যায় অন্যতম অভিযুক্ত সাভারকর, কীভাবে নিশ্চিত মৃত্যুদণ্ডের হাত থেকে বাঁচলেন?

সাভারকর কীভাবে ‘বীর’ বিশেষণে ভূষিত হলেন?

জনৈক চিত্রগুপ্তের লেখা লাইফ অফ ব্যারিস্টার সাভারকর নামে একটি বই, সাভারকরের ওপর লেখা প্রথম জীবনীমূলক বই। ১৯২৬ সালে এটি প্রকাশিত হয়। এই বইতে সাভারকরকে এক সাহসী বীর নায়ক হিসেবে দেখানো হয়। এবং সাভারকরের মৃত্যুর দুই দশক পরে, যখন সাভারকরের লেখাপত্রের অফিশিয়াল প্রকাশক বীর সাভারকর ফাউন্ডেশন ১৯৮৭ সালে এই বইয়ের দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশিত করে, তখন ফাউন্ডেশনের সম্পাদক রবীন্দ্র রামদাস জানান, বইটির লেখক, “চিত্রগুপ্ত, স্বয়ং সাভারকর ব্যতীত আর কেউ নয়”।

এই আত্মজীবনীতে, থুড়ি, চিত্রগুপ্ত-লিখিত জীবনীতে, সাভারকর পাঠকদের উদ্দেশ্যে জানান যেঃ “সাভারকর আজন্ম এক সাহসী নায়ক, ফলাফলের তোয়াক্কা না করেই তিনি যে কোনও কাজের দায়িত্ব নিয়ে তা সম্পূর্ণ করতে পিছপা হতেন না। সরকারের যে নিয়ম বা আইন তাঁর কাছে সঠিক বা বেঠিকভাবে অন্যায় মনে হত, তৎক্ষণাৎ সেই অশুভ নিয়মকে সমাজের বুক থেকে চিরতরে মুছে ফেলার জন্য তিনি যে কোনও পন্থা অবলম্বন করতে দ্বিধা বোধ করতেন না।” … More সাভারকর কীভাবে ‘বীর’ বিশেষণে ভূষিত হলেন?